ছয় বছরের শিশুকে ধর্ষণের পর গলাটিপে হত্যা, আটক ১

165
gb

জিবি নিউজ 24 ডেস্ক //

নরসিংদীর পলাশে কাকলি আক্তার (৬) নামের এক শিশুকে ধর্ষণের পর গলাটিপে হত্যা করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার গজরিয়া ইউনিয়নের ধনারচর গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় রবিন মিয়া (১৪) নামে এক কিশোরকে আটক করেছে পুলিশ। নিহত শিশু কাকলি আক্তার ধনারচর গ্রামের অটোরিকশা চালক উসমান মিয়ার মেয়ে ও বক্তারপুর সরকারি বিদ্যালয়ের শিশু শ্রেণির ছাত্রী। অপরদিকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় আটককৃত রবিন মিয়া একই গ্রামের কৃষক কাশেম মিয়ার ছেলে।

পুলিশ ও নিহতের পরিবারের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে বাড়ির পাশে শিশু কাকলি আক্তার খেলা করছিল। হঠাত্ তাঁর কোন সাড়া-শব্দ না পেয়ে পরিবারের লোকজন খোঁজাখুঁজি শুরু করে। একপর্যায়ে বাড়ির পাশের একটি নির্জন স্থানে শিশুটি রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে এলাকাবাসী শিশুটির পরিবারকে খবর দেয়। পরে তাঁর পরিবারের সদস্যরা শিশুটিকে মৃত অবস্থায় পায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থালে গিয়ে হত্যার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে রবিন নামে এক কিশোরকে আটক করে।

নিহত শিশু কাকলির মা ফারজানা আক্তার বলেন, দুপুরে দেখছিলাম আমার কলিজার টুকরা কাকলি খেলা করতাছিল। হঠাৎ তাঁর কোনো আওয়াজ শব্দ না পাইয়া দেখি সে নাই। পরে খোঁজাখুঁজি শুরু করছি। পরে তাঁর লাশ পাইছি। আমার মাইয়াডারে যে এইভাবে মারছে আল্লাহর গজব নামব তাঁর ওপর। আমি তাঁর ফাঁসি চাই।’

পলাশ থানার ওসি (তদন্ত) গোলাম মোসস্তফা বলেন, ‘সুরতহাল ও প্রাথমিকভাবে শিশুটিকে ধর্ষণের পর গলাটিপে হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। শুনেছি শিশুটি খেলা করা অবস্থায় তাঁর সঙ্গে রবিন নামে ওই কিশোরটি ছিল। ধর্ষণ ও হত্যার সঙ্গে সে জড়িত থাকতে পারে বলে আমাদের ধারণা। তাই তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। এদিকে এ ঘটনায় পর থেকে পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।’