Bangla Newspaper

লন্ডনে শোক সভা শিক্ষক রুহুল আমিনের মানবিকতাবোধ স্মরণীয় হয়ে থাকবে লন্ডন

17

লন্ডনে শোক সভা শিক্ষক রুহুল আমিনের মানবিকতাবোধ স্মরণীয় হয়ে থাকবে লন্ডন, ৬ ডিসেম্বর: বিয়ানীবাজারের ঐতিহ্যবাহী পঞ্চখণ্ড হরগোবিন্দ উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিনের ইন্তকালে এক শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ৫ ডিসেম্বর মঙ্গলবার পূর্ব লন্ডনের মাইক্রো বিজনেস সেন্টারে অনুষ্ঠিত ওই আবেগঘন শোকসভার আয়োজন করে বিদ্যালয়টির শতবর্ষ উদযাপনে গঠিত উদযাপন পরিষদ (পঞ্চখণ্ড হরগোবিন্দ উচ্চ বিদ্যালয় শতবর্ষ উদযাপন পরিষদ, ‍যুক্তরাজ্য)। শিক্ষক রুহুল আমিন পঞ্চখণ্ড হরগোবিন্দ উচ্চ বিদ্যালয়েরই শিক্ষার্থী ছিলেন। পেশাজীবনে এই বিদ্যালয়েই শিক্ষকতা করেন। বছরে কয়েক আগে তিনি শিক্ষকতা ছেড়ে অবসরে যান। গত ৩০ নভেম্বর সিলেটের একটি বেসরকারী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল করেন। গত ৫ নভেম্বর উদযাপন পরিষদ যুক্তরাজ্যে মহাসমারোহে পঞ্চখণ্ড হরগোবিন্দ উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদযাপন করে। এ আয়োজনে প্রকাশিত স্মারক ম্যাগাজিন ‘পঞ্চখণ্ড স্মরণিকা’র জন্য লেখা পাঠিয়েছিলেন শিক্ষক রুহুল আমিন। যুক্তরাজ্যে এই আয়োজন সম্পর্কে জেনে এবং বাংলাদেশে ওই ম্যাগাজিনটি হাতে পেয়ে তিনি বেশ উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু আকস্মিকভাবেই তাঁর মৃত্যুরে এ সংবাদ সকলকে ব্যাথিত করলো। শতবর্ষ উদযাপন পরিষদের আহবায়ক মনজ্জির আলীর সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম সদস্য সচিব ও মরহুমের সহপাঠী আলহাজ ছমির উদ্দিনের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত স্মরণসভায় প্রয়াত শিক্ষক রুহুল আমিনের বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবনের কথা তুলে ধরেন বক্তারা। সূচনা বক্তব্যে উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব ও প্রয়াত শিক্ষকের সহপাঠী প্রবীন সাংবাদিক ও সাবেক কাউন্সিলার জনাব শাহাব উদ্দিন আহমদ বেলাল অশ্রুসিক্ত নয়নে স্কুল জীবনের স্মৃতিসহ কর্মজীবনের নানা স্মৃতি তুলে ধরেন। এ সময় স্মরণসভায় এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। সভার শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন শতবর্ষ উদযাপন পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক কয়ছর উদ্দিন জালাল। এরপর বিদ্যালয়ের প্রয়াত সকল শিক্ষক ও ছাত্রদের বিদেহি আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট দাডিয়ে নীরবতা পালন করা হয়। রুহুল আমিনকে একজন পরোপাকারী ও সমাজসেবী হিসেবে আখ্যায়িত করে বক্তারা বলেন, তাঁর মানবিকতাবোধ আজীবন স্মরণীয় হয়ে থাকবে। সভায় বক্তাদের সকলেই প্রয়াত শিক্ষক রুহুল আমীনকে সৎ, ধার্মিক, ন্যায়নিষ্ঠ ও মানুষ গড়ার সুদক্ষ কারিঘর এবং সর্বোপরি একজন হৃদয়বান নি:স্বার্থ বিশিষ্ট সমাজসেবী ছিলেন বলে উল্লেখ করেন। তাঁর রুহের মাগফেরাত কামনা করেন। একজন কৃর্তীমান ব্যক্তি হিসাবে তাঁর নামে বিয়ানীবাজারে একটি রাস্তা অথবা যেকোন ভবনের নামকরণের দাবি জানান বক্তারা। প্রয়াত এই শিক্ষকের স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখেন শতবর্ষ উদযাপন পরিষদের প্রধান উপদেষ্টা ও যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ শামসুদ্দিন খান, পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক আলহাজ শরফ উদ্দিন, ডা: আব্দুল কাদির, কয়ছর উদ্দিন জালাল, বিলাল মোহম্মদ ফাহিম, সংগঠনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আলহাজ বদরুজ্জামান বদর, যুগ্ম সদস্য সচিব ফয়জুল হক, লুৎফুর রহমান ছায়াদ, কার্যকরী সদস্য হেলাল উদ্দীন আহমদ, প্রবাসে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক মজুমদার মিয়া, যুক্তরাজ্য জাসদ নেতা মো: রেদোয়ান খান, কবি নজরুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রনেতা আবুল হোসেন অদুদ, লন্ডন মহানগর আওয়ামী লীগের সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য আব্দুর রহিম শামীম, বিয়ানীবাজার জনকল্যাণ সমিতি ইউকের সাধারন সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, কোষাধ্যক্ষ হাজী ফখরুল ইসলাম, ইউনাইটেড বিয়ানীবাজারের প্রতিষ্ঠাতা রাহুল এ রহমান, সাবেক ছাত্রনেতা নুর উদ্দিন লোদী, যুবনেতা শিহাব উদ্দিন, প্রজন্ম’৭১ যুক্তরাজ্যের আহবায়ক মো: বাবুল হোসেন প্রমুখ। গত সপ্তাহে বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র লন্ডন প্রবাসী পৌরসভাধীন ফতেপুর গ্রামের হাজী আতাউর রহমান ওরপে আপ্তাব হাজী, বার্মিংবাম প্রবাসী নয়াগ্রামের (বড়দেশ) হাজী আলা উদ্দিন এবং দুর্বৃত্তদের হামলায় নির্মমভাবে নিহত সুপাতলা গ্রামের আনোয়ার হোসেনের মৃত্যুতে সভায় শোক প্রকাশ করা হয়। শোকসন্তপ্ত পরিবারগুলোর প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। আয়োজনের দ্বিতীয় পর্বে প্রয়াত শিক্ষক রুহুল আমীন এবং উপরোল্লেখীত ব্যক্তিদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মিলাদ ও দোয়া পরিচালনা করেন হাফিজ মওলানা কাজী আহমদ হাসান এবং হাফিজ মওলানা সাজ্জাদুর রহমান।

Comments
Loading...